রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪ | ৯ আষাঢ় ১৪৩১
Dhaka Prokash

দুদকের জালে বিএনপির শীর্ষ নেতৃত্ব

বিএনপির শীর্ষ নেতাদের বিরুদ্ধে মামলাগুলো সচল করছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। দলটির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে মামলা সচল রেখেছে দুদক। পাশাপাশি ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মির্জা আব্বাস, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সালাউদ্দিন আহমেদ, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকুর মতো নেতাদের মামলাতে গতি এনেছে দুদক।

বিএনপি নেতৃত্বের অভিযোগ, সরকার চলমান আন্দোলন বেগবান করতে ও রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে জাতীয়তাবাদী দলের শীর্ষ নেতাদের নতুন করে দুদকের মামলার জালে আটকাতে চাইছে। যদিও এসব মামলা নিয়ে সরাসরি কোনো মন্তব্য করতে চাননি বিএনপির কোনো নেতাই।

দুদক সূত্র জানায়, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মির্জা আব্বাস, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সালাউদ্দিন আহমেদ, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, রাশেদুজ্জামান মিল্লাতসহ বিএনপির অনেক নির্বাহী কমিটির সদস্য ও বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা-কর্মীদের নামে মামলা সচল করা হচ্ছে।

বিএনপির কয়েকজন নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে ঢাকাপ্রকাশ-কে বলেন, মামলার বিষয়ে মন্তব্য করতে চাই না। তবে এই সংস্থাকে আমরা কোনো গুরুত্ব দিচ্ছি না। কারণ এরা সরকারের নির্দেশে কাজ করে।

জানতে চাইলে দুদকের সহকারী পরিচালক (জনসংযোগ) মোহাম্মদ শফিউল্লাহ ঢাকাপ্রকাশ-কে বলেন, বিএনপির কিছু নেতার নামে আগের মামলা রয়েছে। সেসব মামলার তদন্ত প্রক্রিয়াধীন। আর নতুন মামলার বিষয়ে আপাতত কিছু বলতে পরছি না। খোঁজ খবর নিয়ে বলতে হবে। এসময় তিনি এ প্রতিবেদককে দুদকের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলার পরামর্শ দেন।

দুদকের সংশ্লিষ্টরা বলেন, কে খালেদা জিয়া কে তারেক রহমান বা কে বিএনপি বা অন্যদলের নেতা তা দেখার সময় দুদকের নেই। দুদকের কাছে সব মামলাই একই রকম। সবার ক্ষেত্রেই আইন সমান। জানা গেছে, বিএনপির শীর্ষ কিছু নেতার নামে দুদকের গোপনে তদন্ত ও মামলার প্রস্তুতি চলছে।

বিএনপি'র সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, দুদকের মামলায় বেশ কয়েকজন নেতা জামিনে আছেন। তবে দুদকের মামলার জালে বিএনপির কত জন নেতা রয়েছেন সেই বিষয়টি পরিষ্কার হওয়া যায় নি।

জানা যায়, বর্তমানে বিএনপি নেতাদের নামে দুদকের মামলাসহ মোট মামলা সংখ্যা ২ লাখ। আর এসব মামলায় আসামি সংখ্যা ৩৬ লাখের কাছাকাছি। বর্তমান ২৫ হাজার থেকে ৩০ হাজার নেতা-কর্মী কারাগারে রয়েছেন।

দুদকের মামলাসহ এখনো বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে ৩৭টি মামলা রয়েছে। তিনি সরকারের নির্বাহী আদেশে বাসা থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

এদিকে, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নামে দুদক ও অন্যান্য প্রায় অর্ধশতাধিক মামলা রয়েছে। যদিও তিনি দেশের বাইরে অবস্থান করছেন।

অন্যদিকে, দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নামে প্রায় ১০০ মামলা রয়েছে। তবে তার নামে দুদকে কোনো মামলা নেই বলে দুদকের সংশ্লিষ্টরা জানান।

জানতে চাইলে দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান ঢাকাপ্রকাশ-কে বলেন, দুদকের মামলাগুলো তদন্ত করেই আদালতে আবেদন করা হয়। শুধু দুদক নয়, যে সমস্ত মামলা আমার কাছে আসে সে মামলাগুলো আমি লড়াই করে থাকি। তা ছাড়া কে বিএনপি নেতা, কে আওয়ামী লীগের নেতা অথবা কে জামায়াতের নেতা সেটা দেখা মুখ্য বিষয় আমার না। আমি কোনো রাজনীতির সঙ্গে সংযুক্ত নয়।

দুদকের এই আইনজীবী আরও বলেন, বিএনপির যে সকল নেতার নাম আপনি বললেন তাদের মামলার ফাইল আমাদের কাছে রয়েছে। তাদের মামলাগুলো যে শুধু আমিই আইনজীবী হিসেবে লড়াই করি বিষয়টি এমন নয়। আমি অপরাধের বিরুদ্ধে লড়াই করি।

বিএনপির আইনবিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার কায়সার কামাল বলছেন, সম্পূর্ণ উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে বিএনপি নেতাদের বিরুদ্ধে পুরাতন মামলা সচল করার উদ্দ্যেগ নেওয়া হচ্ছে। দলের শীর্ষ নেতাদের বেছে বেছে আবার নতুন নতুন মামলা দেওয়া হচ্ছে এবং পরিকল্পনা চলছে। গত বছরের শেষের দিকে বিএনপি নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে প্রায় ২ শতাধিক গায়েবি মামলা দেওয়া হয়। দুদকের মামলাসহ এসব মামলার কোনো ভিত্তি নেই।

বিএনপির আইনবিষয়ক সম্পাদক আরও বলেন, সাধারণ মানুষ এখন বলে থাকে দুদক বিএনপি দমনের কমিশনে পরিণত হয়েছে। বিএনপিকে দমনের জন্য একদিকে পুলিশ আর অন্যদিকে দুর্নীতি দমন কমিশন আর আদালতের ওপর ভর করে কাজ করে যাচ্ছে। তাদের আসল উদ্দেশ্য গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের জন্য বিএনপির নেতৃত্বে যে আন্দোলন চলছে সেই আন্দোলনকে গলাটিপে হত্যা করা। এজন্য তারা রাষ্ট্রযন্ত্র ব্যবহার করে যা মনে চাইছে তাই করছে।

আরইউ/এসএন

Header Ad

আজ সোনাক্ষী সিনহার বিয়ে

সোনাক্ষী সিনহা ও জাহির ইকবাল। ছবি: সংগৃহীত

বলিউড অভিনেত্রী সোনাক্ষী সিনহা। তার বিয়ে নিয়ে বলিউডে উৎসব চলছে। গত শুক্রবার মেহেদি সন্ধ্যার মধ্য দিয়ে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। আজ রবিবার (২৩ জুন) পাত্র জাহির ইকবালের বাড়িতে রেজিস্ট্রির মাধ্যমে বিয়ে সম্পন্ন হবে।

শত্রুঘ্ন সিনহার ঘনিষ্ঠ বন্ধু শশী রঞ্জন। সোনাক্ষীর বিয়ে নিয়ে তিনি ভারতীয় গণমাধ্যমে জানান, সোনাক্ষী তার ভালোবাসার মানুষকে বিয়ে করছেন। এটি অতি আনন্দের সংবাদ। এরই মধ্যে বিয়েতে যোগ দিতে অতিথিরা ছেলের বাড়িতে চলে এসেছেন। শত্রুঘ্ন সিনহাও এসেছেন। এটা আমাদের জন্য খুবই আনন্দের মুহূর্ত। এখানেই রেজিস্ট্রির মাধ্যমে বিয়ে সম্পন্ন হবে।

এর আগে সোনাক্ষীর মেহেদি সন্ধ্যার ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। সোনাক্ষী সিনহা ও জাহির ইকবাল দীর্ঘসময় ধরে প্রেমের সম্পর্কে আছেন। তবে কখনোই মিডিয়ার সামনে নিজেদের সম্পর্ক নিয়ে মুখ খোলেননি দুজনের কেউই। সোনাক্ষী ও জাহির ২০২২ সালে একসঙ্গে ‘ডাবল এক্সএল’ শিরোনামে একটি সিনেমাতে অভিনয় করেছেন। তবে এর আগে থেকেই দুজনের মধ্যে সম্পর্ক ছিল। এবার বিয়ের মাধ্যমে নতুন জীবন শুরু করতে যাচ্ছেন তারা।

বলিউডের এই দুই তারকার বিয়ে ঘিরে এরই মধ্যে জাহিরের বাড়িতে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। তবে বিয়েতে সোনাক্ষীর পোশাক কী হবে, সে বিষয়ে এখনো কোনো তথ্য প্রকাশ করা হয়নি।

প্রসঙ্গত, সাত বছর ধরে প্রেম করছেন সোনাক্ষী সিনহা ও জাহির ইকবাল। ২০২২ সালে ‘ডাবল এক্সএল’ ছবিতে একসঙ্গে কাজ করেছিলেন সোনাক্ষী ও জাহির। সালমান খানের এক পার্টিতে কাছাকাছি আসেন তারা। কাকতালীয়ভাবে সালমানের হাত ধরেই দুজনেই বলিউডে পা রাখেন।

দায়িত্ব নিলেন নতুন সেনাপ্রধান ওয়াকার-উজ-জামান

জেনারেল ওয়াকার-উজ-জামান। ছবি: সংগৃহীত

সেনাবাহিনী প্রধান হিসেবে দায়িত্ব নিয়েছেন লেফটেন্যান্ট জেনারেল ওয়াকার-উজ-জামান। এর মাধ্যমে তিনি সদ্য বিদায়ী সেনাপ্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদের স্থলাভিষিক্ত হলেন।

রবিবার (২৩ জুন) আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তরের (আইএসপিআর) এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। আগামী তিন বছরের জন্য তিনি সেনাপ্রধানের দায়িত্ব পালন করবেন।

নতুন সেনাপ্রধান ওয়াকার-উজ-জামানের শ্বশুর মুস্তাফিজুর রহমানও একসময় সেনাবাহিনীর নেতৃত্ব দিয়েছেন। ১৯৯৭-২০০০ মেয়াদে বাংলাদেশের সেনাপ্রধান ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা মুস্তাফিজুর রহমান।

শেরপুরের সন্তান ওয়াকার-উজ-জামান ১৯৮৫ সালের ২০ ডিসেম্বর ত্রয়োদশ দীর্ঘমেয়াদি কোর্সের মাধ্যমে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর পদাতিক কোরে কমিশন পান। দীর্ঘ ৩৯ বছরের সামরিক জীবনে তিনি একটি পদাতিক ব্যাটালিয়ন, একটি পদাতিক ব্রিগেড এবং পদাতিক ডিভিশনের নেতৃত্ব দিয়েছেন। স্কুল অব ইনফ্যান্ট্রি অ্যান্ড ট্যাকটিকস এবং সেনা সদর দপ্তরে বিভিন্ন পদে দায়িত্ব পালন করেছেন।

চলতি বছরের শুরুতে সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসারের (পিএসও) দায়িত্ব থেকে চিফ অফ জেনারেল স্টাফ (সিজিএস) করা হয় ওয়াকার-উজ-জামানকে। তার আগে ২০২০ সালের নভেম্বরে মেজর জেনারেল থেকে পদোন্নতি পেয়ে লেফটেন্যান্ট জেনারেল হন। তখনই তাকে সেনা সদর দপ্তরের সামরিক সচিবের দায়িত্ব থেকে পিএসও করা হয়।

ওয়াকার-উজ-জামান সেনা সদর দপ্তরের সামরিক সচিবের দায়িত্ব পান ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারিতে। তার আগে তিনি নবম পদাতিক ডিভিশনের নেতৃত্বে ছিলেন। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসারও ছিলেন এক সময়। অ্যাঙ্গোলা ও লাইবেরিয়ায় জাতিসংঘ শান্তি মিশনে সিনিয়র অপারেশন অফিসার হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন এই সেনা কর্মকর্তা।

সেনাবাহিনীর ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টে কমিশন পাওয়া ওয়াকার-উজ-জামান মিরপুরের ডিফেন্স সার্ভিসেস কমান্ড অ্যান্ড স্টাফ কলেজ এবং যুক্তরাজ্যের জয়েন্ট সার্ভিসেস কমান্ড অ্যান্ড স্টাফ কলেজ থেকে গ্র্যাজুয়েশন করেন। পরে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাস্টার্স অব ডিফেন্স স্টাডিজ এবং যুক্তরাজ্যের কিংস কলেজ থেকে মাস্টার্স অব আর্টস ইন ডিফেন্স স্টাডিজ ডিগ্রি পান।

২০০৯ সালে ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টের অধিনায়ক থাকাকালে বিডিআর বিদ্রোহ দমনে তার ভূমিকা প্রশংসিত হয়। ২০১৪, ২০১৫ ও ২০১৬ সালে টানা তিন বছর বিজয় দিবস প্যারেডের প্যারেড কমান্ডারের দায়িত্ব পালন করে তিনি ‘সেনাগৌরব পদক’ পান। এছাড়া সেনাবাহিনীতে কৃতিত্বপূর্ণ ভূমিকার জন্য পান ‘অসামান্য সেবা পদক’। ওয়াকার-উজ-জামান এবং তার স্ত্রী বেগম সারাহনাজ কমলিকা দুই মেয়ের বাবা-মা।

১৪ জেলায় নতুন এসপি নিয়োগ

ছবি: সংগৃহীত

১৪ জেলার পুলিশ সুপারকে (এসপি) বদলি করা হয়েছে। রবিবার (২৩ জুন) স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের পুলিশ-১ শাখা থেকে জারি করা এক প্রজ্ঞাপনে তাদের বদলি করা হয়।

জেলাগুলো হলো- রংপুর, কুষ্টিয়া, সিলেট, কুমিল্লা, পটুয়াখালী, বরগুনা, বগুড়া, ফেনী, পাবনা, টাঙ্গাইল, নীলফামারী, যশোর, মাদারীপুর ও সুনামগঞ্জ।

বদলি কর্মকর্তাদের মধ্যে- ডিএমপির ডিসি মোহাম্মদ শাহজাহানকে রংপুরের পুলিশ সুপার (এসপি), ডিএমপির ডিসি মুহাম্মদ আলমগীর হোসেনকে কুষ্টিয়া, কুমিল্লার এসপি আব্দুল মান্নানকে সিলেটে, সিলেটের এসপি মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল মামুনকে ডিএমপির ডিসি, পটুয়াখালীর এসপি মো. সাইদুল ইসলামকে কুমিল্লা, বরগুনার এসপি মো. আবদুস ছালামকে পটুয়াখালী, বরগুনার পুলিশ সুপার মো. আবদুস ছালামকে পটুয়াখালী, পিবিআইয়ের পুলিশ সুপার মো. রাফিউল আলমকে বরগুনা, ফেনীর এসপি জাকির হাসানকে বগুড়ায় পদায়ন করা হয়েছে।

এছাড়া ডিএমপির ডিবির ডিসি মো. আ. আহাদকে পাবনা, নীলফামারীর এসপি মো. গোলাম সবুরকে টাঙ্গাইল, পিবিআইয়ের এসপি মো. মোকবুল হোসেনকে নীলফামারী, মাদারীপুরের এসপি মাসুদ আলমকে যশোর, এসবির পুলিশ সুপার মো. শফিউর রহমানকে মাদারীপুর, পুলিশ সদরদপ্তরের এম এন মোর্শেদকে সুনামগঞ্জের এসপি হিসেবে পদায়ন করা হয়েছে।

সর্বশেষ সংবাদ

আজ সোনাক্ষী সিনহার বিয়ে
দায়িত্ব নিলেন নতুন সেনাপ্রধান ওয়াকার-উজ-জামান
১৪ জেলায় নতুন এসপি নিয়োগ
সময় নিয়েও জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দুদকে হাজির হননি বেনজীর
আইনের ভিত্তিতে খালেদা জিয়াকে বিদেশে পাঠানোর অনুমতি নেই: আইনমন্ত্রী
রক্তাক্ত ফিলিস্তিনিকে জিপের সামনে বেঁধে নিয়ে গেল ইসরায়েলি বাহিনী
বর্ণচোরা বিএনপি আমাদের চলার পথে প্রধান বাধা: ওবায়দুল কাদের
৩টা জিতেছি, ৩টা হেরেছি, খুব একটা খারাপ নয়: সাকিব
ছাগলকাণ্ডে এনবিআর কর্মকর্তা মতিউরকে ওএসডি করা হয়েছে
একাদশে ভর্তিতে প্রথম ধাপের ফল প্রকাশ আজ
আবাসিক হোটেলে অসামাজিক কার্যকলাপ, ২০ নারী-পুরুষ আটক
সিভিল এভিয়েশনের গলার কাঁটা হোটেল শেরাটন, বিমান চলাচলে ঝুঁকি!
রোনালদোর রেকর্ডের রাতে তুরস্ককে উড়িয়ে দিয়ে নকআউটে পর্তুগাল
অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে সেমির স্বপ্ন বাঁচিয়ে রাখল আফগানিস্তান
আওয়ামী লীগের প্লাটিনাম জয়ন্তীতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা
গাজায় ইসরায়েলি হামলা, নিহত আরও শতাধিক
আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ঘিরে বন্ধ থাকবে যেসব সড়ক
ভারতের কাছে হেরে সেমিফাইনালের স্বপ্নভঙ্গ বাংলাদেশের
আওয়ামী লীগের প্লাটিনাম জয়ন্তী আজ
কেটে ফেলা হলো গোপালগঞ্জের সেই কথা বলা আলোচিত গাছ